রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০১:০০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রাজারহাট উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির মানববন্ধন আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার পক্ষে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে বাণিজ্যমন্ত্রী সাভারে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের ময়লা পরিষ্কার পবিপ্রবি রোভার এন্ড গার্ল-ইন রোভারের ইউনিফর্ম বিতরণ সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁর রাণীনগরে একজন শিক্ষক দিয়ে চলছে লক্ষীকোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বাঘাইছড়িতে বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২১ উপলক্ষে রেলী ও আলোচনা সভা উদযাপন সোনারায় এর নৌকার মাঝি মজিদ মিরপুরে আওয়ামী লীগের দুই চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ গোয়াইনঘাটে তৃতীয় ধাপে ৬ টি ইউনিয়নে ২৮ নভেম্বর ইউপি নির্বাচন আওয়ামীলীগের বিতর্কিত কমিটি বিলুপ্তি ঘোষণা, আহ্বায়ক কমিটি গঠনের নির্দেশ
পাকাঘরে থাকতে পারবো স্বপ্নে ও ভাবতে পারিনি

পাকাঘরে থাকতে পারবো স্বপ্নে ও ভাবতে পারিনি

 

আফতাব উদ্দীন সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:
পাকাঘর পেয়ে খুশী ইসলাম উদ্দিন ও সুফিয়া বেগম সারাদিনের কাজ শেষে এখন আর ভূমিহীন ও গৃহহীন হতদরিদ্র ২ পরিবারের ফুটপাত বা অন্যের ঘরে থাকতে হয় না। এখন প্রতিদিন থাকতে পারেন নিজ ঘরে। শুধু ঘরই নয়, থাকছে নিজ নামে দুই শতক জমি, স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট, সুন্দর বারান্দাসহ বসবাসের নিরাপদ সুবিধা। গত রবিবার ইসলাম উদ্দিন ও সুফিয়া বেগম,র মত ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারগুলো পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া স্বপ্নের বাড়ি। ঐদিন সকালে গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারদের মধ্যে এসব বাড়ি হস্তাস্তর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সুনামগঞ্জ জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলার ১১টি উপজেলায় ১ম পর্যায়ে ৩ হাজার ৯০৮টি ও ২য় পর্যায়ে ৩৫৮টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পেয়েছেন ‘স্বপ্নের নীড়’। এর মধ্যে বিভিন্ন উপজেলায় ২য় পর্যায়ে ৩৫৮টির মধ্যে ২০৯টি ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে । সুনামগঞ্জ পৌরসভার ৯নং ওয়াডের জলিলপুর গ্রামের ভূমিহীন মৃত. সুনালীর ছেলে ইসলাম উদ্দিন ও ফজর আলীর স্ত্রী সুফিয়া বেগম বলেন, আমি ছেলে, মেয়ে-নাতি-নাতনি নিয়ে মানুষের জায়গায় কোন মতে ছোট একটি কুঁড়েঘর তুলে থাকি। স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি যে, আমি জমিসহ ইটের একখানা নতুন ঘর পাবো। শেখ হাসিনার সরকার আমাকে ইটের ঘর দিবেন। এই বয়সে ইটের পাকা দালান ঘরে থাকতে পারবো। আমি ভীষণ খুশি হয়েছি ঘর পেয়ে। দোয়া করি শেখ মুজিবের বেটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন‍্য আচার বিক্রেতা সুনালীর ছেলে ইসলাম উদ্দিন জানান, ছোট ছোট ৪টি সন্তান ও বউ নিয়ে খড়কুটার ঘড়ে থাকতাম, বৃষ্টি এলেই অন‍্যর বাড়িতে ও বারান্দায় আশ্রয় নিতাম। সরকার আজ আমাদের একটি সুন্দর ঘর দেওয়ায় আমি এখন অনেক খুশি।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো শাহাদাৎ হোসেন ভূঁইয়া জানান, সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রতিটি ঘরের জন্য দুই শতাংশ খাসজমির বন্দোবস্তসহ দুই কক্ষের সেমিপাকা ঘর তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। এসব ঘরের প্রতিটিতে একটি রান্না ঘর, টয়লেট ও সামনে খোলা বারান্দা রয়েছে। প্রতিটি ঘরে ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা করে ব্যয় ধরে বাস্তবায়ন করা হয়েছে।প্রতিটি ঘরে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা করে। তবে প্রথম পর্যায়ে নির্মিত ১০টি ঘরে সরকারি বরাদ্দ ছিলো ১ লক্ষ ১০ হাজার টাকা করে।
জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলা ২য় পর্যায়ে ২০৯টি ঘর পেয়েছেন ভূমিহীন ও গৃহহীনরা। এর আগেও এই জেলায় ১ম পর্যায়ে বিভিন্ন উপজেলায় ৩ হাজার ৯০৮টি ঘর বরাদ্দ হয়েছিলো। সেগুলো হস্তান্তর করা হয়েছে।
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি বলেন, এই প্রকল্পটি আমাদের জন্য একটি গৌরবের ও আত্মমর্যাদার প্রকল্প। বাংলাদেশের কোন মানুষ আর গৃহহীন-ভূমিহীন থাকবে না। আমাদের নেত্রী এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন, আমরা সর্বাত্মক নেত্রীর সাথে আছি। দেশের এই দরিদ্র মানুষ গুলো ঘর পেয়ে কি-যে আনন্দ প্রকাশ করছে তা কেউ না দেখলে বুঝবেন না। একটি আশ্রয়ের আশায় মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে যখন মাথা গোজার ঠাঁই পায়নি, ঠিক সেই সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে দেশের ভূমিহীন-গৃহহীনদের মধ্যে একেবারে বিনামূল্যে ঘর নির্মাণ করে দিবেন। আজ এই প্রকল্পটি সারা দেশে বাস্তবায়ন হচ্ছে। দেশের দরিদ্র মানুষগুলো আজ নিজের একটি ঠিকানা পেয়েছে।





পুরাতন নিউজ খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
©2019-2021 Daily Vorer Kantho. All rights reserved.