রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রাজারহাট উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির মানববন্ধন আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার পক্ষে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে বাণিজ্যমন্ত্রী সাভারে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের ময়লা পরিষ্কার পবিপ্রবি রোভার এন্ড গার্ল-ইন রোভারের ইউনিফর্ম বিতরণ সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁর রাণীনগরে একজন শিক্ষক দিয়ে চলছে লক্ষীকোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বাঘাইছড়িতে বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২১ উপলক্ষে রেলী ও আলোচনা সভা উদযাপন সোনারায় এর নৌকার মাঝি মজিদ মিরপুরে আওয়ামী লীগের দুই চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ গোয়াইনঘাটে তৃতীয় ধাপে ৬ টি ইউনিয়নে ২৮ নভেম্বর ইউপি নির্বাচন আওয়ামীলীগের বিতর্কিত কমিটি বিলুপ্তি ঘোষণা, আহ্বায়ক কমিটি গঠনের নির্দেশ
গাইবান্ধায় ৪৮ বছরেও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পাননি গাইবান্ধার বীর মুক্তিযোদ্ধা

গাইবান্ধায় ৪৮ বছরেও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পাননি গাইবান্ধার বীর মুক্তিযোদ্ধা

এন এম সরকার,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা জেলার ফুলছরি উপজেলার আফছার আলী স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও মেলেনি রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি,বীর মুক্তিযোদ্ধা আছর আলী গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের ভাষারপাড়া গ্রামের মৃত- আফিল উদ্দিনের ছেলে।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন বাজি রেখে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েও আজ পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পাননি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফছার আলী। স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও তিনি মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভূক্ত হতে পারেননি। ফলে তার ভাগ্যে জোটেনি কোন ভাতা বা সুযোগ-সুবিধা।

দেশকে স্বাধীন করতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েন তরতাজা যুবক আফছার আলী। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ কবির চৌধুরী (সাবেক পুলিশ অফিসার) এবং আরও ২৮জনসহ আফছার আলী ভারতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বালাসীঘাট দিয়ে নৌকা যোগে জিগাবাড়ির চরে পৌঁছান। সেখান থেকে পাথরের চর, তারপর ২৮ মার্চ ভারতের মেঘালয়ের আমপাতি শহরে সঙ্গীদেরসহ পা রাখেন আফছার। ভারতের কাকরীপাড়া ক্যাম্পে প্রশিক্ষক সুবেদার আজিম উদ্দিনের অধীনে সশস্ত্র প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। এরপর তিনি কোম্পানী কমান্ডার এম.এন নবী লালুর অধীনে হানাদার পাকিস্তানী বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসরদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আফছার আলী রসুলপুরের সুইচ গেট, দারিয়াপুরের ব্রীজ,গাইবান্ধার ওয়ারলেস ধ্বংস করাসহ বিভিন্ন অপারেশনে সহযোদ্ধাদের সাথে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন।

শুধু অক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন স্বল্প শিক্ষিত এই মুক্তিযোদ্ধা দেশ মাতৃকার প্রয়োজনে পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন জীবন বাজি রেখে। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও তার ভাগ্যে জোটেনি কোন স্বীকৃতি। মুক্তিযোদ্ধার ভাতা পাওয়া তো দূরের কথা, বিজয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবসের কোন অনুষ্ঠানেও আমন্ত্রণ পাননি এই অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা আফছার আলী। বঞ্চিত এই মুক্তিযোদ্ধা বর্তমানে নানাবিধ অভাব-অনটনে জর্জরিত। তার এক ছেলে বর্তমানে মানসিক রোগে আক্রান্ত। কিন্তু অর্থাভাবে ছেলের চিকিৎসাও করাতে পারছেন না তিনি। শেষ জীবনেও কি তার ভাগ্যে জুটবে না কোন স্বীকৃতি? তিনি কি বঞ্চিতই থেকে যাবেন? দেশের হৃদয়বান ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকেও তিনি কি কোন সাহায্য-সহযোগিতা পেতে পারেন না?





পুরাতন নিউজ খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
©2019-2021 Daily Vorer Kantho. All rights reserved.